Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সাধারণ তথ্য

আকাশচিত্র বিশ্লেষণ, মাঠ থেকে মৃত্তিকা নমুনা, তথ্যাদি সংগ্রহ এবং গবেষণাগারে নমুনার রাসায়নিক বিশ্লেষণের মাধ্যমে ইতোমধ্যে সিলেট জেলার সবক’টি “উপজেলার ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পদ ব্যবহার নির্দেশিকা” প্রস্তুত ও প্রকাশ করা হয়েছে। সম্প্রতি ১০টি (সিলেট সদর, দক্ষিণ সুরমা, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, ফেঞ্চুগঞ্জ, জকিগঞ্জ, জৈন্তাপুর, বিশ্বনাথ, বালাগঞ্জ ও ওসমানীনগর) উপজেলায় পুণরায় জরিপের মাধ্যমে “উপজেলা ভূমি ও মৃত্তিকা সম্পদ ব্যবহার নির্দেশিকা” নবায়ন সম্পন্ন করা হয়েছে। গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্দেশিকা নবায়ন কাজ প্রায় সম্পন্ন।

সিলেট জেলার মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের জরিপলব্ধ ভূমি, মৃত্তিকা এবং বর্তমান ফসল বিন্যাস-এর সাধারণ তথ্যাবলী নিম্নে দেয়া হলোঃ

সিলেট জেলার ৩টি ভূপ্রকৃতি/কৃষি পরিবেশ অঞ্চল (AEZ) এবং শতকরা হার

১) উত্তর ও পূর্বাঞ্চলীয় পাহাড়=১৮,৩৫৩ হেক্টর  (৫ %)
২) উত্তর এবং পূর্বাঞ্চলীয় পাদদেশীয় ভূমি=৩৬,৭১১ হেক্টর  (১১ %) ও
৩) পূর্বাঞ্চলীয় সুরমা-কুশিয়ারা পলল ভূমি=২,৩০,৩১৩ হেক্টর  (৬৭ %)
এছাড়া এ জেলায় বিবিধ ভূমি (বসতবাটি, নদী, জলাশয় ইত্যাদি) রয়েছে ৬০,০২৬ হেক্টর  (১৭ %)

 

১) উত্তর ও পূর্বাঞ্চলীয় পাহাড়ী অঞ্চলঃ এ  এলাকার পাহাড়গুলো মাঝারি উচুঁ ও নিচু পহাড় শ্রেণীর অন্তর্গত, সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে যার উচ্চতা ৩০০ মিটারের নিচে। পাহাড়গুলো সর্পিল আকৃতির উপত্যকা দ্বারা মাঝে মাঝে বিভক্ত। এ উপত্যকা দ্বারা স্থানীয়ভাবে বর্ষার পানি নিষ্কাশিত হয়। পাহাড়গুলো প্রধানত অধিক খাড়া (৫০%-৭০%) ঢাল শ্রেণীর অন্তর্গত। কিছু পাহাড়ের মাটি বেলে পাথরের টুকরা সমৃদ্ধ এবং অন্যান্য পাহাড়ী এলাকায় গাঢ় বাদামী রংয়ের বেলে দোআঁশ থেকে এটেল দোআঁশ জাতীয় ঝুরঝুরে ও দৃঢ় মাটি দেখা যায়। এসব মাটির প্রতিক্রিয়া অধিক অম্ল। উপত্যকায় গাঢ় বাদামী থেকে ধূসর রংয়ের বেলে দোআঁশ জাতীয় ঝুরঝুরে মাটি পাওয়া যায়। এসব মাটির প্রতিক্রিয়া অধিক অম্ল থেকে অত্যধিক অম্ল।

২) উত্তর এবং পূর্বাঞ্চলীয় পাদদেশীয় ভূমিঃ এ এলাকার ভূমি পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত, যা ক্ষয়প্রাপ্ত পাহাড়ী মাটি থেকেই সৃষ্ট হয়েছে। পাহাড়তলীর সমুদয় ভূমিই পাহাড়ের দিক থেকে আস্তে আস্তে ঢালু হয়ে হাওর বা বিল এলাকায় বিস্তৃত হয়েছে। পাহাড় সংলগ্ন ডাংগা জমিতে ধূসর রংয়ের বেলে দোআঁশ থেকে এটেল দোআঁশ জাতীয় মাটি রয়েছে। মাঝারি উঁচু ও মাঝারি নিচু জমিতে বেলে দোআঁশ, এটেল দোআঁশ এবং নিচু থেকে অতি নিচু জমিতে এটেল জাতীয় মাটি রয়েছে। এসব জমি প্রায় সমতল থেকে সমতল ঢাল শ্রেণীর অন্তর্গত। এসব মাটির প্রতিক্রিয়া সাধারণতঃ অধিক অম্ল।

৩) পূর্বাঞ্চলীয় সুরমা-কুশিয়ারা পললভূমিঃ এ অঞ্চলটি বিস্তৃত এলাকা জুড়ে রয়েছে। সুরমা-কুশিয়ারা নদী বাহিত পলি মাটি দ্বারা এ অঞ্চল গঠিত। এ পললভূমি সমতল থেকে প্রায় সমতল ঢাল শ্রেণীর অন্তর্গত। এলাকাটি উঁচু ও নিচু ডাংগা, অগভীর ও গভীরভাবে প্লাবিত প্রশস্ত বিল ও হাওর নিয়ে গঠিত। উঁচু ডাংগা ভূমি বর্ষাকালে সাধারণ বন্যায় প্লাবিত হয় না। নিচু ডাংগাগুলো অগভীর থেকে গভীরভাবে প্লাবিত হয়ে থাকে। উঁচু ও মাঝারি উঁচু জমিতে ধূসর রংয়ের দোআঁশ থেকে এটেল দোআঁশ মাটি, মাঝারি নিচু থেকে নিচু এলাকায় ধূসর রংয়ের এটেল দোআঁশ থেকে এটেল মাটি এবং গভীরভাবে প্লাবিত বা হাওরের অতি নিচু জমিতে সবুজ ধূসর রংয়ের এটেল মাটি রয়েছে। এসব মাটির প্রতিক্রিয়া সাধারণতঃ মৃদু অম্ল থেকে অধিক অম্ল।   

 

সিলেট জেলার ভূমি শ্রেণির (Land Type) আয়তন এবং শতকরা হার
উঁচু জমি (পাহাড়)= ১৪,৩৭৪ হেক্টর (৪ %)
উঁচু জমি(ডাংগা/উপত্যকা এবং বর্ষাকালে স্বাভাবিক বন্যায় প্লাবিত হয় না)= ২৩,০১০ হেক্টর (৭ %)
মাঝারি উঁচু জমি(বর্ষাকালে স্বাভাবিক বন্যায় সর্বোচ্চ ৩ ফুট গভীরতা পর্যন্ত প্লাবিত হয়)= ৮১,৫১৯ হেক্টর (২৪ %)
মাঝারি নিচু জমি(বর্ষাকালে স্বাভাবিক বন্যায় ৩ থেকে ৬ ফুট গভীরতা পর্যন্ত প্লাবিত হয়)= ৭৪,৩১৫ হেক্টর (২১ %)
নিচু জমি(বর্ষাকালে স্বাভাবিক বন্যায় ৬ ফুট থেকে ৯ ফুট গভীরতা পর্যন্ত প্লাবিত হয়)= ৬৮,৬৮৮ হেক্টর (২০ %)
অতি নিচু জমি(বর্ষাকালে ৯ ফুট-এর অধিক গভীরতা পর্যন্ত প্লাবিত হয়)= ২৩,৪৭১ হেক্টর (৭ %)
বিবিধ(বসতবাটি, নদী, জলাশয় ইত্যাদি)= ৬০,০২৬ হেক্টর (১৭ %)


সিলেট জেলার মাটির উপরিস্তরের বুনট (Soil Texture)-এর আয়তন এবং শতকরা হার
বেলে মাটি=  ১,৯৭৪ হেক্টর  (১ %)
বেলে দোআঁশ মাটি=  ২১,১৩৬ হেক্টর  (৬ %)
দোআঁশ মাটি=   ৪১,৫২৩ হেক্টর  (১২ %)
এটেল দোআঁশ মাটি= ১,৮২,০৫০ হেক্টর  (৫৩ %)
এটেল মাটি=  ৩৮,৬৯৪ হেক্টর  (১১ %)
বিবিধ (বসতবাটি, নদী, জলাশয় ইত্যাদি)= ৬০,০২৬ হেক্টর  (১৭ %) 


সিলেট জেলার প্রধান প্রধান ফসল বিন্যাস (Cropping Pattern)

চা বাগান; বনাঞ্চল; ঝোপঝাড় ও বাশঁবন; ফলবাগান; রবি শাকসব্জি-খরিফ শাকসব্জি; রবি শাকসব্জি-বীজতলা-বীজতলা; রবিশস্য-রোপা আউশ -রোপা আমন; রবি সব্জি -রোপা আউশ -পতিত; রবিসব্জি-রোপা আউশ -রোপা আমন; রবিসব্জি-পতিত-রোপা আমন; পতিত-রোপা আউশ-রোপা আমন; পতিত-বোনা আউশ-রোপা আমন; বোরো-পতিত-রোপা আমন; বোরো-পতিত-বোনা আমন; রবিসব্জি-বোনা আউশ-বোনা আমন; রবিশস্য/সব্জি-পতিত-পতিত; তিশি/ধনে-পতিত-পতিত; পতিত-পতিত -বোনা আমন; বোরো-পতিত-পতিত; মিষ্টি কুমড়া-পতিত; পানিকচু-পতিত-পতিত এবং পতিত-পতিত-রোপা আমন ইত্যাদি।